বাংলাদেশের সেরা ১০ টি পোষা প্রাণীর তালিকা

বাংলাদেশের সেরা ১০ টি পোষা প্রাণীর তালিকা

কেন আপনি পোষা প্রাণী রাখবেন?

আপনি যদি আপনার বিষণ্নতা, উদ্বেগ, চাপ, একাকীত্ব কমাতে একজন অনুগত, স্নেহপূর্ণ এবং বিশ্বস্ত সঙ্গীর সন্ধান করেন তবে পোষা প্রাণী হতে পারে আপনার দুর্দান্ত সঙ্গী ।
পোষা প্রাণী খুবই অনুগত, সামাজিক এবং কৌতুকপূর্ণ হয়ে থাকে। একটি পোষা প্রানী হয়তো আপনাকে অর্থ আয় করে দিবেনা তবে তারা আপনাকে কিছু বিশেষ এবং মজার সময় উপহার দিবে,আপনার একাকিত্ব দূর করবে যা হয়তো আপনি অনেক অর্থ ব্যয় করেও পাবেননা।
এসবের পাশাপাশি তারা আপনার দৈনিক ব্যায়ামের সময় বাড়াবে যেমন বাইরে যাওয়া, হাঁটা কিংবা জগিং করা সর্বত্র আপনাকে সঙ্গ দিবে। আর প্রতিদিনের ব্যায়াম আপনার শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা, ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করবে।
আপনি যখন আপনার পোষা প্রাণীর সাথে সময় কাটাবেন, তখন আপনি অনেকটা প্রশান্তি ও আরাম বোধ করবেন। এর কারণ হিসেবে পাওয়া যায়, এই সময়ে, আপনার মস্তিষ্ক অধিক হারে “ENDORPHIN” বা “এন্ডোরফিন” নামক রাসায়নিক পদার্থ নিঃসরণ করে   যা আপনার মানসিক চাপ কমায় এবং আপনাকে একটি ভাল অনুভূতি দেয়।
তাই এটা বলা যেতে পারে যে, একটি পোষা প্রাণীর মালিকানা আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতিতে একটি ভাল ভূমিকা পালন করে।
এছাড়াও একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, পোষা প্রাণীদের সাথে পুরুষ এবং মহিলাদের ছবি, পোষা প্রাণী না থাকার চেয়ে ১৩.৪% বেশি সুন্দর এবং আকর্ষণীয় দেখায়।
এসব কারণেই একটি পোষা প্রাণীর মালিক হওয়ার সিদ্ধান্ত, হবে আপনার জন্য একটি দুর্দান্ত সিদ্ধান্ত।


এখানে বর্তমান বাংলাদেশের ১০ টি জনপ্রিয় পোষা প্রাণীর তালিকা, তাদের অভ্যাস, বাসস্থান এবং জীবনকাল সহ বলা হয়েছে।
এখন আপনি পছন্দ করুন কোন পোষা প্রাণী আপনার জন্য সেরা হতে পারে ……

01.বিড়াল

পোষা প্রাণী
ছবিঃ পোষা বিড়াল
  • আপনি যদি শান্তি প্রেমিক হন, তাহলে বিড়াল আপনার পোষা প্রাণী হিসাবে একটি ভাল পছন্দ হতে পারে।  বিড়াল খুবই শান্ত নিরীহ স্বভাবের প্রাণী। এছাড়াও তারা আন্তরিক, স্নেহময়, সামাজিক, স্বাধীন, সবচেয়ে আদরপ্রিয়, মাঝারিভাবে উদ্যমী ও অনুগত ।
  • বিড়ালের রক্ষণাবেক্ষণের ঝামেলাও কম এবং বাসাবাড়িতে পোষার জন্য ট্রেইন করাও খুবই সহজ।  কুকুর এবং অন্যান্য পোষা প্রাণীর মত কোন বিশেষ প্রশিক্ষণের প্রয়োজন হয় না। বিড়ালের জাতগুলি সাধারণত আপনি তাদের বাড়িতে আনার পর খুবই দ্রুত লিটার বক্সের(পট) ব্যবহার পদ্ধতি রপ্ত করে নেয়। আপনাকে শুধু তাদের লিটার বাক্সের অবস্থান দেখাতে হয়।
  • গবেষণায় দেখা গেছে, বিড়াল তার মালিকদের উপর একটি শান্ত এবং প্রশান্তিদায়ক প্রভাব ফেলে।যেমন এটি মালিকের রক্তচাপ কমাতে এবং হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমাতে দারুণ ভূমিকা পালন করে।
  • কিছু হারানো খুব বেদনাদায়ক। আর যদি সেটি আপনার আদরের পোষাপ্রাণীটি হয়, তাহলে তা সত্যিই হৃদয়বিদারক।তবে বিড়ালের জীবনকাল সামগ্রিকভাবে দীর্ঘ।বাড়ির পোষা বিড়াল হিসাবে, বিড়ালদের জীবনকাল গড়ে ১২-১৫ বছর হয়ে থাকে।

আরোও পড়ুনঃ কোন বিড়ালের জাতটি হবে আপনার জন্য সেরা পছন্দ জেনে নিন।

02. কুকুর

  • মানুষের পাশাপাশি অন্য প্রাণীদের সাথে সুসম্পর্ক তৈরি করার বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে কুকুরের মাঝে।
  • আপনি কুকুর বিষয়ে একটি কথা হয়তো শুনে থাকবেন, “একটি কুকুর একটি মানুষের সেরা বন্ধু?”  কিন্তু কেন জানেন??
  • কারণ তারা প্রতিদিনের ব্যায়ামের মাধ্যমে আপনাকে সুস্থ ও উৎফুল্ল করে তুলতে পারে যা আপনাকে ফিট রাখতে দারুণ কার্যকরী।পাশাপাশি তারা আপনার মানসিক চাপ কমিয়ে আপনাকে সুখী করতে পারে।
  • কুকুরছানা অত্যন্ত সক্রিয় এবং আদুরে স্বভাবের হয়। তারা খুব ভালো নজরদারি রাখতে পারে যা আপনাকে, আপনার বাড়ি এবং আপনার প্রিয়জনকে রক্ষা করতে পারে।
  • কুকুর মানুষের মুখের অভিব্যক্তি বোঝে। এটি আপনার একাকীত্ব দূর করতে পারে এবং আপনাকে টেনশন মুক্ত করতে পারে।
  • কুকুর সাধারণত 20 বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে কিন্তু কুকুরের গড় আয়ু ১০-১৩ বছর।

03. পাখি

  • যদি আপনার দেশ অঞ্চলের আইন অনুসারে পোষা প্রাণী হিসাবে একটি পোষাপাখির মালিক হওয়া বৈধ হয় তবে এটি আপনার জন্য একটি সুন্দর অভিজ্ঞতা হতে পারে।
  • যারা কুকুর এবং বিড়ালের মতো বড় পোষা প্রাণী পছন্দ করেন না, তাদের কাছে পাখি অবশ্যই পোষা প্রাণীর একটি সুন্দর পছন্দ হতে পারে।
  • পোষা প্রাণী হিসেবে পাখি রক্ষণাবেক্ষণের ঝামেলা খুবই কম। এদের খাওয়ানো এবং যত্ন নেওয়ার খুবই সহজ।  তাদের বসবাসের জন্য কোন বিশেষ বা বৃহত্তর স্থানের প্রয়োজন হয় না, তারা একটি ছোট এবং ক্ষুদ্র বাসস্থানে বাস করতে পছন্দ করে।
  • পাখি খুব বুদ্ধিমান এবং সামাজিক। অন্যান্য প্রাণীর তুলনায় পাখিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া খুবই সহজ। এমনকি কিছু পাখি (যেমনঃ আমাজন প্যারাট, আফ্রিকান গ্রে, বুজেরিগার এবং ইন্ডিয়ান রিংনেক প্যারাকিট ইত্যাদি)  মানুষের মতো কথা বলতে পারে।
  • প্রজাতির উপর ভিত্তি করে পাখির জীবনকাল পরিবর্তিত হয়। পাখি সাধারণত ৪ থেকে ১০০ বছর বাঁচতে পারে।

04. মাছ

পোষা প্রাণী
ছবিঃ একুরিয়াম ফিস
  • আপনি যদি আপনার জন্য সবচেয়ে রক্ষণাবেক্ষণ করা লাগবে এমন পোষা প্রাণী বা স্ট্রেস রিলিভার খুঁজেন, তবে মাছ হল সেরা সমাধান।
  • আপনি যদি আপনার বাড়িতে বা বাগানে অ্যাকুরিয়াম বা পুকুরে মাছ পালন করেন তবে এটি আপনার ওই জায়গায় একটি বাড়তি সৌন্দর্য যোগ করবে।
  • সময়মত খাওয়ানো, ফিল্টার বন্ধ/চালু করা, পানি পরিষ্কার করা ইত্যাদি আপনাকে দৈনন্দিন জীবনের জন্য আরোও দায়িত্বশীল করে তুলবে।
  • আপনার বাসার অ্যাকুরিয়ামে মাছ পালন আপনাকে একটি পুকুর বা জলাশয়ের বাস্তুতন্ত্র শেখার বা সামনে দেখার সুযোগ দেবে।
  • অন্যান্য পোষা প্রাণীর মতো, এটির জন্য অনেক জায়গার প্রয়োজন হবে না। আপনি একটি অ্যাকুরিয়ামে বিভিন্ন জাতের অনেক মাছ রাখতে পারেন যা আপনাকে বাড়তি সৌন্দর্য এবং মানসিক শান্তি দেবে।
  • প্রজাতির উপর নির্ভর করে মাছ ০২ থেকে ৬০ বছর বাঁচতে পারে। ধরুন, সিয়ামিজ ফাইটিং ফিশের আয়ুষ্কাল ২ – ৫ বছর, কমন কার্প ২০ বছর কিন্তু ওয়েলস ক্যাটফিশের ৬০ বছর।
  • তবে একুরিয়াম ফিস সাধারণত ২-৩ বছর বেঁচে থাকতে পারে।

আরোও পড়ুনঃ বিভিন্ন জাতের গাপ্পি মাছের দাম

05. খরগোশ

  • যদি একজন প্রাণী প্রেমিক তার জন্য একটি সস্তা এবং আদুরে স্বভাবের মোলায়েম পোষা প্রাণী খুঁজেন, তাহলে খরগোশ হল তার সর্বোত্তম সমাধান। খরগোশ তুলনামূলক সস্তা এবং কম রক্ষণাবেক্ষণের একটি পোষা প্রাণী।
  • আপনি যদি খুব ব্যস্ত জীবনযাপন করেন এবং প্রতিদিন বাইরে হাঁটা বা ব্যায়ামের জন্য আপনার কাছে পর্যাপ্ত সময় থাকে না কিন্তু আপনি কুকুরছানা স্বভাবের একটি পোষা সঙ্গী খুঁজছেন তবে খরগোশ সে জায়গা নিতে পারে কারণ খরগোশ কুকুরের মতোই অনুগত এবং স্নেহশীল।
  • খরগোশ হল দ্রুত অভ্যাস আয়ত্তকারী, ভাল শ্রোতা এবং অনন্য প্রতিভাবান কৌতুক অভিনেতা যা আপনি তাদের শরীরের অভিব্যক্তির মাধ্যমে বুঝতে পারবেন। খরগোশের সুন্দর কান, নরম নাক, মোলায়েম পশমি শরীর আপনাকে বিড়ালের মতো অনুভূতি দেবে এবং তারা বিড়ালের মতোই স্বাধীন, কৌতুহলী এবং আদুরে।
  • খরগোশের জীবনকাল গড়ে ১০-১২ বছর।

06. হ্যামস্টার

  • হ্যামস্টার একজন আনাড়ি ব্যক্তির পোষা প্রাণী হিসেবে নিখুঁত হতে পারে কারণ এটির জন্য খুব বেশি মনোযোগের প্রয়োজন হয় না তবে মনে রাখবেন যে তারা শিশু বা বাচ্চাদের হাতে নিজেদের নিরাপদ বোধ করে না তাই কামড় দিতে পারে৷ তাদের যত্নশীল এবং মৃদু হ্যান্ডলিং প্রয়োজন৷
  • হ্যামস্টার খুব সুন্দর, সবচেয়ে আদুরে, বিনোদনমূলক এবং খুবই মনোরম হয়। তারা ছোট বাসস্থান পছন্দ করে,তাদের দেখতেও অনেক সুন্দর লাগে।
  • হ্যামস্টাররা নিশাচর। তারা সারাদিন গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন থাকলেও রাতে থাকে সজাগ।একটি নতুন পরিবারের সাথে মানিয়ে নিতে তাদের কোন বিশেষ প্রশিক্ষণের প্রয়োজন হয় না।
  • হ্যামস্টার খুব পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন প্রাণী। তারা পায়খানা করার জন্য তাদের খাঁচার একটি কোণা নির্বাচন করে। তাই এটি পরিষ্কার করা খুব সহজ।
  • এই কম রক্ষণাবেক্ষণের পোষা প্রাণী যদি স্বাস্থ্যকর খাদ্য এবং একটি ভাল জীবনযাপনের পরিবেশ পায় তবে হ্যামস্টারারের জীবনকাল ০৩ বছর পর্যন্ত হতে পারে।

07. গিনিপিগ

  • গিনিপিগ ছোট (20-40 সেমি), বন্ধুত্বপূর্ণ, কোমল, অনুসন্ধিৎসু প্রাণী, যা একটি কম রক্ষণাবেক্ষণ পোষা প্রাণী উভয়ের জন্য উপযুক্ত হতে পারে।
  • গবেষণা বা শিক্ষার অংশ হিসেবে বিভিন্ন বায়োলজিক্যাল কাজে সর্বোচ্চ ব্যবহৃত এই প্রাণী টি হতে পারে আপনার দৈনন্দিন জীবনের বিশ্বস্ত সঙ্গী।আপনি হোন তরুণ কিংবা শিশু, কেননা এটি সবার সাথেই মানিয়ে নেয়।
  • আপনি যখন তাদের বাড়িতে নিয়ে যাবেন, প্রথমে তারা একটু নার্ভাস হতে পারে তবে আপনার বিশেষ যত্ন, পরিচালনা এবং মনোযোগের মাধ্যমে এটি শান্ত হয়ে যাবে। তারপর, তারা খুব মিশুক এবংসুশীল স্বভাবের  হবে
  • গিনিপিগের কোনো বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয় না, ধরুন এটিকে বছরে ২ বা ৪ বার গোসল করালেই হয়। তবে সময়মত খাওয়ানো এবং বাসস্থান পরিষ্কার করা তাদের জন্য আবশ্যক। 
  • গিনিপিগের জীবনকাল ৩ থেকে ৫ বছর।

08. টিকটিকি

  • আপনি যদি আপনার সন্তানের জন্য একটি সুন্দর এবং স্নেহপূর্ণ পোষা প্রাণী খুঁজেন, তাহলে টিকটিকি হতে পারে সেরা সমাধান।
  • টিকটিকি বহন করা এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা খুব সহজ। কিন্তু তাদের গুরুত্বের সঙ্গে রক্ষণাবেক্ষণ করা আবশ্যাক, তাই এর মালিককে অবশ্যই এই বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।
  • টিকটিকি সহজে বশ মানে এবং নতুন স্থানে বসবাস করতে অভ্যস্ত হয়। তারা এত কোলাহলপূর্ণ নয়।  তারা আমাদের বাড়িতে কীটপতঙ্গ এবং পোকামাকড় নিয়ন্ত্রণে একটি মহান ভূমিকা পালন করে।
  • সমস্ত প্রজাতির টিকটিকি পোষা প্রাণী হিসাবে উপযুক্ত নয়।  সবচেয়ে জনপ্রিয় পোষা টিকটিকি হল-  01. ব্ল্যাক এন্ড হোয়াইট তেগু  02. ক্রেস্টেড গেকো  03. ফ্যাট-টেইল্ড গেকো  04. বিয়ার্ডেড ড্রাগন 05. ব্লু টাংগড শিংক 06. লিওপার্ড গেকো
  • টিকটিকি ৫ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে কিন্তু টিকটিকির গড় আয়ু ৩ থেকে ৫ বছর।

পড়ে দেখুনঃ আপনার একুরিয়াম টি কিভাবে সাজাবেন?

09. হেজহগ

  • হেজহগ খুব বন্ধুত্বপূর্ণ, বুদ্ধিমান, কৌতুকপূর্ণ, বিনোদনমূলক এবং সামাজিক প্রাণী তাই তারা আপনার জন্য খুবই ভালো পোষা প্রাণী হতে পারে।
  • হেজহগ নিশাচর। এরা দিনের বেলা ঘুমাতে অনেক ভালোবাসে।  এরা খুবই শান্ত প্রকৃতির প্রাণী।  তারা কাউকে কামড়ায় না।  তাদের সঠিক যত্ন এবং সময়মতো খাদ্য দেয়া প্রয়োজন।  তারা কৃমি এবং ঝিঁঝিপোকার মতো জীবন্ত পোকামাকড় খায়।
  • তাদের সচেতনতার সাথে পরিচালনা প্রয়োজন। যদিও হেজহগ ছোট কিন্তু বাসস্থান হিসাবে ভালো পরিমাণ জায়গা প্রয়োজন।  একটি মসৃণ বড় খাঁচা বা একটি কাচের অ্যাকোয়ারিয়াম তাদের রাখার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • তাদের একটি অনন্য এবং ক্যারিশম্যাটিক চেহারা আছে। তারা খুব আরামদায়ক এবং শান্ত স্বভাবের পোষা প্রাণী।  তারা খুবই পরিশ্রমী।
  • যদি তাদের সঠিকভাবে যত্ন নেওয়া হয় তবে হেজহগের জীবনকাল ২ থেকে ৫ বছর হতে পারে।

10. সাপ

  • আপনি যদি আপনার সঙ্গী হিসাবে একটি অনন্য এবং আকর্ষণীয় প্রাণী পেতে পছন্দ করেন তবে সাপ সেই জায়গাটি নিতে পারে।  এটি এর মালিককে ভাল সঙ্গ  দিবে।
  • সাপ আপনার মানসিক বিষন্নতা কমাতে খুব সহায়তা করবে।এটি পালনে কোন বিশেষ যত্নের প্রয়োজন হয় না। এরা খুব শান্ত শিষ্ট প্রাণী। কিন্তু অতিরিক্ত ক্ষুধার্ত হয়ে পড়লে তারা রাগান্বিত হতে পারে। তাই সময়মতো তাদের খাওয়াতে হবে।
  • তাদের বাসস্থান তৈরী করা খুব সহজ।তৈরীকৃত খাঁচাটি বা আবাসস্থলটি পরিষ্কার করতে হবে সময়মতো এবং যা করা খুব সহজ।
  • যদিও সাপের কোন আবেগ অনুভব করার ক্ষমতা নেই তবে এটি কুকুর বা বিড়ালের চেয়ে বেশি নিরাপদ এবং কম বিপজ্জনক। কিন্তু এখানে আপনাকে মনে রাখতে হবে যে সব প্রজাতির সাপই নিরাপদ নয়।
  • নিরাপদ পোষা প্রাণী হিসাবে আপনি নিম্নোক্ত দশটি সাপের যেকোনো গুলা নিজের পোষা প্রাণী হিসেবে নিতে। তারা হলো- 01. কর্ন স্নেক  02. বল পাইথন  03. রোজি বোয়া  04. দুধের সাপ  05. কার্পেট পাইথন  06. শিশুদের পাইথন  07. গোফার স্নেক  08. গার্টার স্নেক  09. ওয়েস্টার্ন হগনোস স্নেক  10. ক্যালিফোর্নিয়া কিংস সাপ
  • বিভিন্ন প্রজাতির উপর নির্ভর করে সাপের গড় আয়ু ৯-১০ বছর।

আরোও পড়ুনঃ বাংলাদেশের বিভিন্ন বিষধর সাপ সম্পর্কে জানুন।

Leave a Comment

Fast & Free Delivery
Safe & Secure Payment
100% Money Back Guarantee
X